সারাদেশ

জব্দ তালিকায় নেই ‘অপ্রকাশযোগ্য নথি’

Written by CrimeSearchBD

সাংবাদিক রোজিনা ইসলামের কাছে ‘অপ্রকাশযোগ্য চুক্তির’ নথিপত্র পাওয়া গেছে বলে মামলার এজাহারে বলা হয়। কিন্তু মামলায় পুলিশের করা জব্দতালিকায় অপ্রকাশযোগ্য চুক্তির নথিপত্রের বিষয়টিই কোনোভাবে উল্লেখ নেই। আবার জব্দতালিকায় উল্লেখ, নথিপত্রগুলো জব্দ করা হয়েছে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব কাজী জেবুন্নেছা বেগমের ‘উপস্থাপন মতে’।

জব্দতালিকা ও এজাহারের বিষয়ে জ্যেষ্ঠ আইনজীবীরা বলছেন, অফিশিয়াল সিক্রেটস অ্যাক্ট এবং দণ্ডবিধির যেসব ধারায় রোজিনা ইসলামের বিরুদ্ধে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় যে ধরনের অভিযোগ উত্থাপন করেছেন, তার সঙ্গে মামলার এজাহারের বর্ণনায় বড় ধরনের অসংগতি আছে। মামলার সত্যতা ও ভিত্তি নিয়েই প্রশ্ন উঠছে।

মামলার জব্দতালিকায় বলা হয়, রোজিনা ইসলামকে তল্লাশি করে ওই ডকুমেন্টস (নথিপত্র) উদ্ধার করেন স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব কাজী জেবুন্নেসা। তা ছাড়া তাঁর উপস্থাপন মতে এসব ডকুমেন্ট সাক্ষীদের উপস্থিতিতে জব্দ করা হয়।

আইনজীবীরা বলছেন, যেসব নথিপত্রকে গোপনীয় বলা হচ্ছে, এর কোনোটিই গোপনীয় নয়। সাধারণ মানুষের এসব বিষয়ে জানার পূর্ণ অধিকার আছে। দেশের সংবিধানও জনগণের তথ্যপ্রাপ্তির নিশ্চয়তা দেয়। ওই সব ডকুমেন্ট ওষুধ ক্রয়সংক্রান্ত বাণিজ্যিক চুক্তি হতে পারে। এসব চুক্তির ক্ষেত্রে তৃতীয় কোনো পক্ষ যদি তা প্রকাশ করে দেয়ও, তার দায়ভার কখনো রাষ্ট্রের ওপর পড়ে না। তাই এখানে রাষ্ট্রীয় গোপনীয়তার কোনো বিষয় আসতে পারে না বলে জানিয়েছেন বিশিষ্ট আইনজীবী শাহদীন মালিক।

About the author

CrimeSearchBD