সারাদেশ

সাকিবকে হত্যার হুমকি

Written by CrimeSearchBD

ভিডিওতে দা উঁচিয়ে ক্রিকেট বিশে^র সেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসানকে হত্যার হুমকি দিয়েছে সিলেটের এক যুবক। রোববার রাত ১২টা ৭ মিনিটে ওই লাইভ ভিডিওতে এ হত্যার হুমকি দেয় সিলেট সদর উপজেলার শাহপুর তালুকদারপাড়ার আজাদ বক্স তালুকদারের ছেলে মহসিন তালুকদার। এরপর থেকে হুমকি দাতা যুবককে গ্রেফতারে হন্যে হয়ে খুঁজছে পুলিশ। ওই যুবকের বিরুদ্ধে মামলারও প্রস্তুতি চলছে।
ওই যুবক নিজের ফেসবুক অ্যাকাউন্ট ‘গড়যংরহ ঞধষঁশফধৎ’ থেকে সাকিবকে হত্যার হুমকি দেওয়া লাইভ ভিডিওটি প্রচার করে। সম্প্রতি কালীপূজার অনুষ্ঠানের নিমন্ত্রণ গ্রহণ করে সাকিবের কলকাতায় যাওয়ায় বিক্ষুব্ধ হয়ে তাকে কুপিয়ে টুকরো করে হত্যার হুমকি দেয় যুবক। এ সময় অশ্লীল ভাষায় সাকিবকে গালিগালাজও করতে থাকে সে। মহসিন নিজের পরিচয় প্রকাশ করে বলে, সাকিবকে হত্যা করতে প্রয়োজনে সে হেঁটেই ঢাকা যাবে।
এরপর ভোর ৬টা ৪ মিনিটে আবারও একটি লাইভ ভিডিওতে হাজির হয়ে মহসিন রাতের উত্তেজিত ভিডিওর জন্য দুঃখ প্রকাশ করে সাকিবকে জাতির কাছে ক্ষমা চাওয়ার আহ্বান জানায়। সে সময় হুমকি দাতার ভাষ্য ছিলÑ কারও চাপে এখন এ ভিডিওটি নির্মাণ করছে না সে বরং সাকিবকে একটা সুযোগ দেওয়ার জন্য এবং সাকিবের মতো বাকি সব সেলিব্রেটিদের সঠিকপথে চলার বার্তা দিতেই আবার লাইভ করছে সে।
এ ব্যাপারে সিলেট মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত উপকমিশনার (গণমাধ্যম) এবিএম আশরাফ উল্লাহ তাহের সোমবার সময়ের আলোকে বলেন, সাকিব আল হাসান বাংলাদেশ তথা বিশে^র সম্পদ। তাকে হত্যার হুমকির বিষয়টি নজরে আসার পরপরই পুলিশের সব বাহিনী ওই যুবককে গ্রেফতারে অভিযানে নেমেছে। এ বিষয়ে তথ্য ও প্রযুক্তি আইনে মামলার প্রস্তুতি চলছে বলে জানান তিনি।
২৯ অক্টোবর এক বছরের নিষেধাজ্ঞা শেষে মাঠে ফেরেন সাকিব। বৃহস্পতিবার ভারতের কলকাতার কাঁকুড়গাছিতে শ্যামাপুজোর অনুষ্ঠানের নিমন্ত্রণ পেয়ে ভারতে যান এই তারকা অলরাউন্ডার। আর ওই পুজোর নিমন্ত্রণে যাওয়ায় অনেকের চক্ষুশূল হন তিনি। গুঞ্জন শুরু হয়Ñ কালীপুজোর মণ্ডপ উদ্বোধন করতেই কলকাতায় গিয়েছিলেন সাকিব। এরপর সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমগুলোয় এই অলরাউন্ডারকে নিয়ে ব্যাপক সমালোচনা শুরু হয়।
সমালোচনা এখনও থেমে নেই। কিন্তু বিষয়টা নিয়ে এতদিন মুখে কুলুপ এঁটে ছিলেন সাকিব। তবে ফেসবুকে সিলেটি যুবকের কাছ থেকে হত্যার হুমকি পাওয়ার পর আর চুপ করে থাকেননি। সোমবার বিষয়টি নিয়ে কথা বলেছেন তার ইউটিউব চ্যানেলের মাধ্যমে। সেখানেই জানালেন, যা ছড়িয়েছে সেই খবর সত্যি নয়। পূজা উদ্বোধন করেননি বলেই দাবি করলেন সাকিব। তবে পূজামণ্ডপে গিয়েছেন বলে ক্ষমা চেয়েছেন তিনি, ‘অবশ্যই ঘটনাটি স্পর্শকাতর। আমি নিজেকে একজন গর্বিত মুসলমান মনে করি। ভুল-ত্রুটি হবেই। ভুল-ত্রুটি নিয়েই আমরা জীবনে চলাচল করি। আমার কোনো ভুল হয়ে থাকলে আপনাদের কাছে ক্ষমা চাইছি।’
এরপর পুরো ঘটনাটি খোলাসা করেছেন সাকিব, ‘সব জায়গায় এসেছে আমি পূজা উদ্বোধন করতে গিয়েছি। কিন্তু আসলে আমি পূজা উদ্বোধন করতে যাইওনি, করিওনি। এটির প্রমাণ আপনারাও পাবেন। ওখানে অনেক সাংবাদিক ভাই ছিলেন, যাদের ওখানে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল। এ ছাড়া কার্ডে লেখাও আছে কে আসলে পূজা উদ্বোধন করেছেন এবং সেটি উদ্বোধন হয়েছে আমি যাওয়ার আগেই। যে জায়গাটিতে আমাদের অনুষ্ঠানটি হয়েছে, সেটি পূজামণ্ডপ ছিল না। সেখানে একটি স্টেজ ছিল। পুরো অনুষ্ঠানটি সেখানে করা হয়। প্রায় ৪০-৪৫ মিনিট আমি সেখানে ছিলাম। সেখানে ধর্ম-বর্ণ নিয়ে কোনো কথা হয়নি।’
তবে পূজামণ্ডপে যে গিয়েছিলেন, সেটি অস্বীকার করেননি সাকিব। কেন গিয়েছিলেন, সেই ব্যাখ্যাও দিয়েছেন তিনি, ‘সেই অনুষ্ঠানের মঞ্চের পাশেই পূজামণ্ডপ ছিল। গাড়িতে আমার ওঠতে হবে, অনেকগুলো রাস্তা বন্ধ ছিল। তাই পূজামণ্ডপ পার হয়েই আমার যেতে হতো। যাওয়ার সময় পরেশ দা; যিনি আমাকে আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন, তার অনুরোধে আমি প্রদীপ প্রজ্বালন করি। যেহেতু আমি কলকাতায় অনেকদিন খেলেছি, কলকাতার মানুষ আমাকে অনেক পছন্দ করেন। তাই সবার অনুরোধে সেখানে ছবি তুলতে দাঁড়াতে হয়।’
মুসলিম হয়েও পূজামণ্ডপে গিয়েছেন, এটাকে ভুল হিসেবেই মেনে নিয়েছেন সাকিব, ‘হ্যাঁ, যেটা হয়েছে দুই মিনিটের মতো সময় আমি পূজামণ্ডপে ছিলাম। সেটি নিয়ে সবাই বলেছে। তারা ধারণা করছেন, আমি পূজার উদ্বোধন করেছি। যেটি আমি কখনই করিনি। একজন সচেতন মুসলমান হিসেবে করব না। তারপরও হয়তো সেখানে যাওয়াটাই আমার ঠিক হয়নি। এজন্য আমি আন্তরিকভাবে দুঃখিত, ক্ষমাপ্রার্থী। সবাই ক্ষমাসুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন। ভবিষ্যতে যেন এমন কিছু না হয় সেটি আমি খেয়াল রাখব।’
পূজা উদ্বোধন করেছেন যিনি, তার পরিচয়ও ওই ভিডিওতে দিয়েছেন সাকিব। কার্ডে তার পরিচয় এভাবে লেখাÑ ফিরহাদ হাকিম, প্রশাসনিক প্রধান, কলকাতা পৌরসভা, মন্ত্রী, পশ্চিমবঙ্গ সরকার।

About the author

CrimeSearchBD