জাতীয় সংবাদ

আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় না এলে সমুদ্রে অধিকার প্রতিষ্ঠিত হতো না : প্রধানমন্ত্রী

Written by CrimeSearchBD

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, স্বাধীনতার পর অনেকে ক্ষমতায় থাকলেও আওয়ামী লীগের হাত ধরেই সমুদ্রসীমায় অধিকার প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। আমরা ক্ষমতায় না এলে এই সমুদ্রসীমায় আমাদের যে অধিকার আছে, এটা কোনো দিনই প্রতিষ্ঠিত হতো না। বাংলাদেশ কোস্ট গার্ডের দুটি অফশোর প্যাট্রল ভেসেল (ওপিভি), পাঁচটি ইনশোর প্যাট্রল ভেসেল (আইপিভি), দুটি ফাস্ট প্যাট্রল বোট (এফপিভি) ও বিসিজি বেজ ভোলার কমিশনিং অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন। রোববার সকালে গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সে যুক্ত হয়ে বক্তব্য রাখেন প্রধানমন্ত্রী।
শেখ হাসিনা বলেন, সমুদ্রসীমায় বাংলাদেশের অধিকার নিশ্চিতে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৭৪ সালে আইন করে দিয়ে যান। জাতির পিতাকে হত্যার পর যারা সংবিধান লঙ্ঘন করে অবৈধভাবে ক্ষমতায় এসেছিল, তারা দেশ ও দেশের মানুষের অধিকার নিয়ে কোনো কথা কখনও বলেনি।
তিনি বলেন, আমরা যদি জিয়াউর রহমান সরকারের কথা বলি, এরশাদ সরকারের কথা বলি বা খালেদা জিয়ার সরকারের কথা বলিÑ যার কথাই বলি, একজনও মেরিটাইম বাউন্ডারিতে (সমুদ্রসীমায়) আমাদের যে অধিকার আছে, সেই অধিকারের কথাটা কখনও তারা উল্লেখও করেননি।
শেখ হাসিনা বলেন, হয়তো আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় না বসলে এই সমুদ্রসীমায় আমাদের যে অধিকার আছে, এটা কোনো দিনই প্রতিষ্ঠিত হতো না। সমুদ্র সম্পদকে কীভাবে কাজে লাগানো যাবে, সরকার ইতোমধ্যে সেই পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে বলে জানান প্রধানমন্ত্রী।
সমুদ্র সম্পদ দেশের অর্থনীতির উন্নয়নে কাজে লাগানোর একটা সুযোগ পাওয়া গেছে মন্তব্য করে তিনি বলেন, বঙ্গোপসাগর অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি সাগর। বিশে^র অনেক ব্যবসা-বাণিজ্য এখান থেকেই হয়। সেদিক থেকে এখানে আমাদের অধিকারটা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। তা ছাড়া আমাদের উপকূলীয় অঞ্চলে যারা বাস করেন, তাদের নিরাপত্তা এবং অর্থনৈতিক উন্নতিটাও আমাদের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। তার কারণ তারা সবসময় অবহেলিত। কাজেই সেদিকে লক্ষ রেখেই আমরা এ সমুদ্র সম্পদকে অর্থনৈতিক উন্নয়নের কাজে লাগাতে চাই।
সুনাম বজায় রাখতে দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ হয়ে সততা ও ঈমানের সঙ্গে দায়িত্ব পালন করতে কোস্ট গার্ডের সদস্যদের নির্দেশনা দেন শেখ হাসিনা। কোস্ট গার্ডকে আধুনিক ও যুগোপযোগী করে গড়ে তুলতে সরকার কাজ করছে জানিয়ে বাহিনীর উন্নয়নে সরকারের নেওয়া বিভিন্ন পদক্ষেপের কথা উল্লেখ করেন তিনি।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, নতুন নতুন দায়িত্ব পালনে সক্ষম করে তুলতে আমরা কোস্ট গার্ডকে একটি আধুনিক ও যুগোপযোগী বাহিনী হিসেবে গড়ে তোলার উদ্যোগ নিয়েছি।
শেখ হাসিনা বলেন, আমাদের বিস্তীর্ণ উপকূলীয় এলাকা এবং সামুদ্রিক জলসীমার সার্বিক আইনশৃঙ্খলা বজায় রাখা, মৎস্যসম্পদ রক্ষা, দেশের সমুদ্রবন্দরের নিরাপত্তা বিধান, চোরাচালান ও মাদকবিরোধী অভিযান ও ডাকাত দমনসহ প্রাকৃতিক দুর্যোগে উপকূলীয় জনগণের জানমাল রক্ষায় কোস্ট গার্ডের ভূমিকা উত্তরোত্তর বাড়ছে।
অনুষ্ঠানে গণভবন প্রান্তে প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব আহমদ কায়কাউস, প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম এবং চট্টগ্রামের পতেঙ্গায় কোস্ট গার্ড বার্থ প্রান্তে বাহিনীর মহাপরিচালক রিয়ার অ্যাডমিরাল এম আশরাফুল হকসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।
প্রধানমন্ত্রীকে অনুষ্ঠানে কোস্ট গার্ডের একটি সুসজ্জিত চৌকশ দল গার্ড অব অনার প্রদান করে। কোস্ট গার্ডের মহাপরিচালক রিয়ার অ্যাডমিরাল মো. আশরাফুল হক অনুষ্ঠানে স্বাগত ভাষণ দেন।
তিনি প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে অনুষ্ঠানে অধিনায়কদের হাতে ‘কমিশনিং ফরমান’ হস্তান্তর করেন। নব্য কমিশনিংকৃত ৯টি জাহাজের ওপর অনুষ্ঠানে একটি ভিডিও চিত্রও পরিবেশিত হয়।

About the author

CrimeSearchBD