জাতীয় সংবাদ

২৬২ গাড়ির হদিস নেই মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের

Written by CrimeSearchBD

মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের ২৬২টি গাড়ির কোনো হদিস নেই। বিভিন্ন প্রকল্পে এসব গাড়ি ব্যবহার করা হলেও প্রকল্প শেষ হওয়ার পরও তা পরিবহন পুলে জমা হয়নি। মন্ত্রণালয়কে এ সংক্রান্ত তদন্ত কমিটি গঠন করে দুই মাসের মধ্যে প্রতিবেদন দেওয়ার সুপারিশ করেছে সংসদীয় কমিটি। বৃহস্পতিবার সংসদ ভবনে অনুষ্ঠিত সরকারি হিসাব সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির ৩৫তম ও ৩৬তম বৈঠকে এ সুপারিশ করা হয়। বৈঠক শেষে কমিটির সভাপতি মো. রুস্তম আলী ফরাজী সাংবাদিকদের এ তথ্য জানিয়ে বলেন, ‘সমাপ্ত প্রকল্পের ২৬২টি গাড়ি কেন্দ্রীয় পরিবহন পুলে জমা দেওয়া হয়নি। এর কোনো হদিস না থাকায় সরকারের বিপুল পরিমাণ আর্থিক ক্ষতি হয়েছে। এ জন্য এ বিষয়ে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়, পরিবহন পুল ও অডিট অফিসের সমন্বয়ে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করার সুপারিশ করা হয়েছে। কমিটিকে দুই মাসের মধ্যে তদন্ত রিপোর্ট দিতে বলা হয়েছে।’ বৈঠকে বাংলাদেশ জুট মিল করপোরেশনের মিলের পাটগুদামে ৭৭৪ দশমিক ৮৩ কুইন্টাল পাট ঘাটতি হওয়ায় প্রতিষ্ঠানের আর্থিক ক্ষতি সংক্রান্ত মামলার সর্বশেষ

অগ্রগতি পরবর্তী বৈঠকে উপস্থাপনের সুপারিশ করা হয়। বৈঠকে বাংলাদেশ টেক্সটাইল মিল করপোরেশনের উৎপাদিত পাট সুতা ঘাটতির ফলে আর্থিক ক্ষতি ১২ লাখ ২২ হাজার ৫১৮ টাকার অডিট আপত্তির বিষয়ে বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়, বিটিএমসি ও অডিট অফিসের সমন্বয়ে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করে পরবর্তী বৈঠকে প্রতিবেদন উপস্থাপনের সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।
বৈঠকে জানানো হয়, ইউএমসি জুট মিলস লিমিটেডের নরসিংদী কার্যালয়ে অনুমোদিত শ্রমিক অপেক্ষা অতিরিক্ত শ্রমিক নিয়োগ করা হয়। এ জন্য সরকারের আর্থিক ক্ষতি ২৬ কোটি ৮৫ লাখ ৫৩ হাজার ৭৬২ টাকা। এ সংক্রান্ত অডিট আপত্তি নিষ্পত্তির সুপারিশ করা হয়। বৈঠকে ব্যক্তিমালিকানায় হস্তান্তরিত ১৭টি মিলের কাছে বিটিএমসি ও সরকারি ঋণের অনাদায়ী পাওয়া ৭৫৭ কোটি ৮৪ লাখ ৩১ হাজার টাকা আদায়ের বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়। কমিটি ১৭টি মিলের একটি পরিপূর্ণ প্রতিবেদন দেওয়ার জন্য বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়, অর্থ মন্ত্রণালয়, আইন মন্ত্রণালয়, বিটিএমসি ও অডিট অফিসের সমন্বয়ে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করে পরবর্তী চার মাসের মধ্যে রিপোর্ট দেওয়ার জন্য সুপারিশ করে।
কমিটির সভাপতি মো. রুস্তম আলী ফরাজীর সভাপতিত্বে বৈঠকে কমিটির সদস্য আবুল কালাম আজাদ, মো. আব্দুস শহীদ, মো. আফছারুল আমীন, মো. শহীদুজ্জামান সরকার, মনজুর হোসেন, আহসানুল ইসলাম (টিটু), মুস্তফা লুৎফুল্লাহ ও বেগম ওয়াসিকা আয়শা খান অংশগ্রহণ করেন। এ ছাড়া মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সচিব, বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়ের সচিব, বিজেএমসির চেয়ারম্যান, বিটিএমসির চেয়ারম্যান ও কম্পট্রোলার অ্যান্ড অডিট দফতর সংশ্লিষ্ট ঊর্ধŸতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

About the author

CrimeSearchBD

%d bloggers like this: