সারাদেশ

সাদিয়ার অভিনব প্রতারণা পাত্রী সেজে কোটিপতি

Written by CrimeSearchBD

‘পাত্র চাই’ বিজ্ঞাপন দিয়ে ফাঁদ পাতত সাদিয়া জান্নাত। পত্রিকার বিজ্ঞাপনে লিখতÑ ‘কানাডার সিটিজেন ডিভোর্সি ও সন্তানহীন নারীর জন্য পাত্র চাই।’ চটকদার এমন কথায় আকৃষ্ট হতো অনেকেই। যোগাযোগের পর দেখা হতো অভিজাত কোনো হোটেল বা রেস্টুরেন্টে। প্রবাসী বিশ^াস করাতে সাদিয়া নিজেকে উপস্থাপন করত আধুনিক ও উচ্চবিত্ত ‘স্টাইলে’। যেই আটকে যেত তখনই টার্গেট ঠিক করে শুরু করত সংসার সাজানো ও ব্যবসা সংক্রান্ত আলাপন। মায়াজাল বিছিয়ে এক পর্যায়ে সাদিয়া নানা কৌশলে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়ে বন্ধ করে দিত সব ধরনের যোগাযোগ।
এভাবেই গত ১০ বছরে ‘পাত্র চাই’ ফাঁদে ফেলে বিভিন্নজনের কাছ থেকে হাতিয়ে নিয়েছে ৩০ কোটির অধিক টাকা। তবে তার শেষ রক্ষা হয়নি। বৃহস্পতিবার বিকালে রাজধানীর অভিজাত এলাকা গুলশান থেকে প্রতারক সাদিয়া জান্নাত ওরফে জান্নাতুল ফেরদৌসকে (৩৮) গ্রেফতার করেছে পুলিশের অপরাধী তদন্ত বিভাগ (সিআইডি)। গ্রেফতারের পর গুলশান থানার একটি প্রতারণা মামলায় তাকে দুই দিনের রিমান্ডেও নেওয়া হয়েছে বলে জানা গেছে।
শুক্রবার দুপুরে রাজধানীর মালিবাগে সিআইডির কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে সিআইডির অতিরিক্ত ডিআইজি শেখ রেজাউল হায়দার বলেন, সুনির্দিষ্ট অভিযোগের ভিত্তিতে বৃহস্পতিবার বিকালে বনানী সুপার মার্কেট এলাকা থেকে সাদিয়াকে গ্রেফতার করা হয়। এ সময় সাদিয়ার কাছ থেকে ভুক্তভোগীদের অনেক পাসপোর্ট, ১০টি মোবাইল ফোন, ৩টি মেমোরি কার্ড, ৭টি সিল, অসংখ্য সিম ও প্রতারণার মাধ্যমে আত্মসাৎ করা টাকার একটি হিসাব বই উদ্ধার করা হয়েছে। রেজাউল হায়দার বলেন, ‘কানাডার সিটিজেন ডিভোর্সি ও সন্তানহীন নারীর জন্য পাত্র চাই’ বলে সংবাদপত্রে এমন চটকদার বিজ্ঞাপন দিয়ে ৩০ কোটিরও বেশি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে প্রতারক সাদিয়া। শিক্ষাগত যোগ্যতা মাত্র এসএসসি পাস হলেও তার কথাবার্তা ও চলনে কানাডা প্রবাসী ভেবে আকৃষ্ট হতো অনেকে। তার ফাঁদে পড়ে অনেকেই খুইয়েছে কোটি কোটি টাকা। ভুক্তভোগীদের কাছ থেকে টাকা নেওয়া হয়ে গেলে সে মোবাইল ফোন বন্ধ করে রাখত।
সিআইডি জানিয়েছে, ৯ জুলাই একটি জাতীয় পত্রিকায় সাদিয়া বিজ্ঞাপন দেয়। তাতে লেখা ছিলÑ ‘প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী কানাডার সিটিজেন ডিভোর্সি সন্তানহীন, বয়স ৩৭, ৫.৩ ফুট লম্বা, নামাজি পাত্রীর জন্য ব্যবসার দায়িত্ব নিতে আগ্রহী বয়স্ক পাত্র চাই। যোগাযোগের জন্য ঠিকানাÑ বারিধারা এবং একটি মোবাইল নম্বর দেওয়া হয়। পত্রিকায় সাদিয়ার ‘পাত্র চাই’ বিজ্ঞাপন দেখে আকৃষ্ট হন পুরান ঢাকার ৭০ বছর বয়সি এক ব্যবসায়ী। ১২ জুলাই গুলশান দুই নম্বরের থাই থাই সিগনেচার রেস্টুরেন্টে পাত্রী সাদিয়ার সঙ্গে প্রথম সাক্ষাৎ হয় তার। এরপর কানাডায় নিয়ে যাওয়া, নাগরিকত্বের আবেদন করা এসব নানা ছলনায় তার কাছ থেকে ১ কোটি ৮০ লাখ টাকা হাতিয়ে নেয় ‘পাত্রী’ প্রতারক সাদিয়া। মাত্র দেড় মাসের ব্যবধানে ওই ব্যবসায়ী এতগুলো টাকা দেন সাদিয়াকে। অবশেষে ১ সেপ্টেম্বর পাত্রী সাদিয়া ‘ডলারের বাক্স’ বলে ভুক্তভোগী ব্যবসায়ীর হাতে সাদা কাগজের একটি বাক্স ধরিয়ে দিয়ে লাপাত্তা হয়। তখনই ওই ব্যবসায়ী প্রতারণার শিকার হয়েছেন বুঝতে পেরে দ্বারস্থ হন সিআইডির।
রেজাউল হায়দার বলেন, ২০১৫ সাল থেকে বিভিন্ন সময় অনেককে ফাঁদে ফেলে বিপুল পরিমাণ অর্থ হাতিয়ে নিয়েছে সাদিয়া। সাদিয়া তার প্রথম স্বামীকে ডিভোর্স (তালাক) দিয়ে দ্বিতীয় স্বামী এনামুল হাসানের সঙ্গে মিলে সংঘবদ্ধভাবে এই প্রতারণা চালিয়ে যাচ্ছিল। সাদিয়াকে গ্রেফতারের পর পুরান ঢাকার সেই ব্যবসায়ী ছাড়াও আরও সাতজন ব্যক্তি সিআইডির কাছে একই ধরনের অভিযোগ করেছেন। তাদের কাছ থেকেও একইভাবে টাকা হাতিয়ে নেওয়া হয়েছে অভিযোগ করেছেন তারা। সাদিয়ার কাছ থেকে যে হিসাবের খাতা জব্দ করা হয়েছে তাতে ২৫ থেকে ৩০ কোটি টাকার হিসাব পেয়েছে সিআইডি। সাদিয়ার চারটি ব্যাংক হিসাব রয়েছে, সেগুলোতে ১ কোটি টাকার সন্ধান পাওয়া গেছে। এ ছাড়াও সিআইসির অনুসন্ধানে ঢাকা ও এর আশপাশে সাদিয়ার অন্তত ২০ কোটি টাকার সম্পত্তির খোঁজ পাওয়া গেছে। বাড়ি কুমিল্লার মুলাদিতে। এই চক্রের বাকি সদস্যদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।
দুই দিনের রিমান্ডে সাদিয়া : ‘পাত্র চাই’ বিজ্ঞাপন দিয়ে ৩০ কোটির বেশি টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগে দায়ের হওয়া মামলায় সাদিয়া জান্নাতের বিরুদ্ধে দুই দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। শুক্রবার মামলার তদন্ত কর্মকর্তা সিআইডির পরিদর্শক শরীফুল ইসলাম শরীফ আসামিকে আদালতে হাজির করে ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন করেন। অপরদিকে আসামিপক্ষে অ্যাডভোকেট জুলহাস উদ্দিন আহম্মেদ সবুজ রিমান্ড বাতিল চেয়ে জামিনের আবেদন করেন। শুনানি শেষে জামিনের আবেদন নামঞ্জুর করে রিমান্ডের আদেশ দেন ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মাসুদ-উর রহমান।

About the author

CrimeSearchBD

%d bloggers like this: