সারাদেশ

মাদকবাহী ট্রাকচাপায় র‌্যাব সদস্যকে হত্যা

Written by CrimeSearchBD

মাদক কারবারিরা ভয়ঙ্কর বেপরোয়া হয়ে উঠেছে। কোনো কিছুকেই যেন তোয়াক্কা করছে না তারা। রোববার ময়মনসিংহের ভালুকায় গাঁজার চালান আটকের চেষ্টাকালে মাদকবাহী ওই ট্রাকচাপা দিয়ে নৃশংসভাবে হত্যা করা হয়েছে এলিটফোর্স র‌্যাবের এক সদস্যকে। নিহতের নাম কনস্টেবল মো. ইদ্রিস মোল্লা (২৮)। তিনি র‌্যাব-১ ব্যাটালিয়নে কর্মরত ছিলেন। সমাজকে মাদকমুক্ত করার অঙ্গীকারে মাঠে নামা অকুতোভয় এই র‌্যাব সদস্যের প্রাণহানির ঘটনায় শোকাহত সহকর্মী ও স্বজনরা। নিহতের বাড়ি মানিকগঞ্জের ঘিওর থানার কেল্লাই গ্রামে। র‌্যাব সদর দফতর জানিয়েছে, র‌্যাব সদস্য ইদ্রিস মোল্লার এই নৃশংস প্রাণহানির ঘটনায় গভীর শোক প্রকাশ করেছেন পুলিশ মহাপরিদর্শক (আইজিপি) ড. বেনজীর আহমেদ ও র‌্যাব মহাপরিচালক চৌধুরী আবদুল্লাহ আল মামুন। গাঁজার চালান উদ্ধারের পাশাপাশি ঘাতক ট্রাকটি আটক করা গেলেও মাদক কারবারি ড্রাইভার ও হেলপার পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়েছে। ঘটনার পর থেকে র‌্যাবের একাধিক টিম ওই চালক-হেলপারকে গ্রেফতারে অভিযান চালিয়ে যাচ্ছে। তবে এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত ঘাতক ট্রাকের চালক-হেলপারদের সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য জানা যায়নি। এ ঘটনায় ভালুকা থানায় একটি হত্যা মামলা করা হয়েছে।
র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক লেফ. কর্নেল আশিক বিল্লাহ জানান, র‌্যাব-১ গোয়েন্দা তথ্যে জানতে পারে গাজীপুরের মাওনা হয়ে ময়মনসিংহে গাঁজার একটি চালান যাবে। সেই তথ্যের ভিত্তিতে রোববার ভোর সাড়ে ৫টার দিকে র‌্যাব-১-এর পোড়াবাড়ী ক্যাম্পের সামনে একটি চেকপোস্ট স্থাপন করা হয়। ঘণ্টাখানেক পর সন্দেহজনক একটি ট্রাককে (ঢাকা মেট্রো ড-১৪-৩৫৮১) চেকপোস্টে থামার জন্য সঙ্কেত দেওয়া হলেও ট্রাকটি সিগন্যাল অমান্য করে চলে যায়। এ অবস্থায় ঘটনাস্থলে উপস্থিত র‌্যাব সদস্য কনস্টেবল ইদ্রিস মোল্লা ও সিনিয়র ডিএডি (উপসহকারী পরিচালক) মো. গোলাম মোস্তফা মোটরসাইকেল নিয়ে ওই ট্রাকের পেছনে ধাওয়া করে। ট্রাকটি বাগের বাজার পৌঁছে চলন্ত অবস্থায় মোটরসাইকেলের সামনে এক বস্তাভর্তি গাঁজা রাস্তার ওপরে ফেলে ধাওয়ারত র‌্যাব সদস্যদের হত্যার চেষ্টা চালায়। এ সময় মোটরসাইকেলের পেছনের আসনে বসা ডিএডি গোলাম মোস্তফা গাঁজার বস্তা থেকে সংগ্রহ করে সেখানে নেমে অবস্থান করেন। অন্যদিকে কনস্টেবল ইদ্রিস সেই মোটরসাইকেল নিয়েই ওই ট্রাকের পেছনে তাড়া করতে থাকেন। এ সময় ইদ্রিসের পেছনেও র‌্যাবের একটি দল মাইক্রোবাস নিয়ে সেই ট্রাককে অনুসরণ করতে থাকে। এভাবেই মোটরসাইকেল নিয়ে কনস্টেবল ইদ্রিস মোল্লা গাজীপুর পার হয়ে ৫-৬ কিলোমিটার এগিয়ে ভালুকায় কোকাকোলা ফ্যাক্টরির উল্টোদিকে এসে ট্রাকটির গতিরোধের চেষ্টা করেন। আর তখনই মাদক বহনকারী ট্রাকচালক কনস্টেবল ইদ্রিসকে হত্যার উদ্দেশে ট্রাকচাপা দিয়ে দ্রুত ঘটনাস্থল ত্যাগ করে। এতে ঘটনাস্থলেই কনস্টেবল ইদ্রিস মোল্লা মারা যান (ইন্নালিল্লাহে … রাজিউন)। এতে কনস্টেবল ইদ্রিসের মোটরসাইকেলটিও দুমড়ে-মুচড়ে যায়। এরপর মাইক্রোবাস নিয়ে অনুসরণ করা র‌্যাবের অন্য দলটি ঘাতক ট্রাকটি ভালুকার সিডস্টোর এলাকা থেকে জব্দ করে। তবে ট্রাকের ড্রাইভার ও হেলপার পালিয়ে যায়। মাদক বহনকারী ট্রাকের প্রাইভার ও হেলপারকে আটকে অভিযান চলমান রয়েছে।
ভালুকা হাইওয়ে পুলিশের ইনচার্জ তৈমুর আলম জানান, ঘাতক ট্রাকচালক ও হেলপার পালিয়ে যায়। ভালুকা হাইওয়ে পুলিশ নিহত কনস্টেবলের লাশ উদ্ধার করে। পরে খবর পেয়ে র‌্যাব-১-এর কর্মকর্তারা উপস্থিত হয়ে কনস্টেবল ইদ্রিস মোল্লার লাশ ময়নাতদন্তের জন্য ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ মর্গে পাঠিয়েছেন।
র‌্যাব সদর দফতর জানিয়েছে, কনস্টেবল মো. ইদ্রিস মোল্লা ২০১১ সালের ২২ ডিসেম্বর বাংলাদেশ পুলিশ বাহিনীতে কনস্টেবল পদে যোগদান করেন। ২০১৯ সালের ৩০ মে প্রেষণে র‌্যাবে যোগদান করেন। ব্যক্তিগত জীবনে তিনি বিবাহিত। এ ঘটনায় র‌্যাবের পক্ষ থেকে শহীদ মো. ইদ্রিস মোল্লার স্ত্রীকে ১ লাখ টাকা এবং তার বাবা ঈমান আলী মোল্লাকে ৫০ হাজার টাকা দেওয়া হচ্ছে। এ ঘটনায় র‌্যাব মহাপরিচালক চৌধুরী আবদুল্লাহ আল মামুন গভীর শোক প্রকাশ করেছেন ও শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করেছেন। র‌্যাব আরও জানিয়েছে, ইতঃপূর্বেও বিভিন্ন অভিযানকালে র‌্যাবের ২৭ জন সদস্য শহীদ হয়েছেন। অভিযানকালে গুলিবিদ্ধ হন ২২ র‌্যাব সদস্য। এ ছাড়াও অভিযানকালে গুরুতর আহত হয়েছেন পাঁচ শতাধিক র‌্যাব সদস্য। এভাবেই নিজের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে জনজীবনে শান্তি প্রতিষ্ঠায় প্রতিনিয়ত কাজ করে যাচ্ছে র‌্যাব।
ইদ্রিস মোল্লার মৃত্যুতে আইজিপির শোক : পুলিশ সদর দফতরের এআইজি (মিডিয়া) মো. সোহেল রানা জানান, মাদকবি‌রোধী অ‌ভিযানকালে মাদকবাহী ট্রাকের চাপায় নিহত পুলিশ সদস্য ইদ্রিস মোল্লার মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন আইজিপি ড. বেনজীর আহমেদ। আইজিপি এক শোকবার্তায় বলেন, মাদকমুক্ত সমাজ গড়ার লক্ষ্যে কনস্টেবল মো. ইদ্রিস মোল্লা কর্তব্যনিষ্ঠা ও পেশাদারিত্বের যে অনুপম আদর্শ স্থাপন করে গেছেন, তা সত্যিই বিরল। তার কর্তব্যবোধ সবার জন্য অনুকরণীয় হয়ে থাকবে। আমরা যখন প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে মাদকমুক্ত সমাজ গড়ার লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছি, তখন ইদ্রিস মোল্লার মতো একজন নির্ভীক পুলিশ সদস্যের মৃত্যু অত্যন্ত দুঃখজনক। আইজিপি মরহুমের বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করেন এবং শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।

About the author

CrimeSearchBD

%d bloggers like this: