সারাদেশ

বিদ্যুৎকেন্দ্রে ভয়াবহ আগুন অন্ধকারে সিলেট

Written by CrimeSearchBD

সিলেট শহরের কুমারগাঁওয়ে বিদ্যুতের গ্রিড উপকেন্দ্রে বড় ধরনের অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে সিলেটের বিদ্যুৎসেবা। আগুন নিয়ন্ত্রণে এলেও কখন বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক হবে তা নিশ্চিত করতে পারছে না বিদ্যুৎ বিভাগ। এ ঘটনায় চার সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছে পাওয়ার গ্রিড কোম্পানি অব বাংলাদেশ (পিজিসিবি)।
মঙ্গলবার বেলা ১১টার দিকে কুমারগাঁওয়ে পিডিবির ৩৩ কেভি গ্রিড উপকেন্দ্রে আগুনের সূত্রপাত হয়।
পরে দমকল বাহিনীর সাতটি ইউনিট প্রায় পৌনে দুঘণ্টা চেষ্টা চালিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। দুপুুর ১টার দিকে আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে।
আগুনে গ্রিডের বিভিন্ন যন্ত্রাংশ বিকট শব্দে বিস্ফোরিত হয়ে এদিক-সেদিক ছড়িয়ে পড়ে। আগুনে তেল সরবরাহের ইউনিটসহ বিদ্যুতের তিনটি ইউনিট পুড়ে গেছে। এতে বিপুল ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে সিলেটের বিদ্যুৎসেবা। আগুন নিয়ন্ত্রণে এলেও কখন বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক হবে তা নিশ্চিত করতে পারছে না বিদ্যুৎ বিভাগ। আগুন নিয়ন্ত্রণ করতে গিয়ে দমকল বাহিনীর জয়ন্ত কুমার নামে এক সদস্য আহত হয়েছেন। তাকে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
আগুন লাগার খবর পেয়ে দুপুরে ঘটনাস্থলে যান সিলেটের জেলা প্রশাসক এম কাজী এমদাদুল ইসলাম। তিনি জানান, আগুন এখন নিয়ন্ত্রণে আছে, তবে পুরো সিলেট জেলার পিডিবি ও পল্লীবিদ্যুতের সব গ্রাহকই বিদ্যুৎহীন। তিনি জানান, ‘বিদ্যুৎ সরবরাহ কখন শুরু হবে তা নিশ্চিত করে বলা যাচ্ছে না। ফলে পিডিবি ও পল্লীবিদ্যুতের পক্ষ থেকে জনগণকে জানাতে মাইকিং করানো হচ্ছে। এক্ষেত্রে সিটি করপোরেশনেরও সহযোগিতা নেওয়া হচ্ছে।’ জেলা প্রশাসক আরও জানান, আগুন লাগার কারণ অনুসন্ধানে বিশেষজ্ঞদের সমন্বয়ে একটি কমিটি গঠন করা হবে। তারা অগ্নিকাণ্ডের প্রকৃত কারণ অনুসন্ধান ও ক্ষয়ক্ষতি নিরূপণ করবেন।
পিডিবির প্রধান প্রকৌশলী মোকাম্মেল হোসেন সময়ের আলোকে জানান, একটি সাব-গ্রেড থেকে আগুনের সূত্রপাত হয়ে পরে মূল গ্রেডে চলে যায়। তবে আগুনে কী পরিমাণ ক্ষতি হয়েছে তা এখনই বলা যাচ্ছে না। তিনি আরও জানান, বিদ্যুৎ সংযোগ স্বাভাবিক হতে সময় লাগবে। তবে নিশ্চিত করে সেই সময়টা বলা যাচ্ছে না। কাজ চলছে। কাল (বুধবার) জানা যাবে বিদ্যুৎ আসলে কখন আসবে।
পিডিবির নির্বাহী প্রকৌশলী ফজলুর রহমান জানান, প্রথমে একটি ছোট গ্রিডে আগুন লাগে। সঙ্গে সঙ্গে আগুন বাসের মাধ্যমে অন্য গ্রিডে চলে যায়। চার-পাঁচটি ট্রান্সফরমার সম্পূর্ণ পুড়ে গেছে। ফায়ার সার্ভিস দ্রুত আগুন নিয়ন্ত্রণে না আনলে পরিস্থিতি আরও ভয়াবহ হতে পারত। তিনি আরও জানান, প্রতিটি ট্রান্সফরমারের দাম ৫-৬ কোটি টাকা। এ ক্ষতি পুষিয়ে উঠতে সময় লাগবে। পুরো স্টেশন আবার সেটআপ করতে হবে। আমরা দ্রুত পরিস্থিতি স্বাভাবিক করতে কাজ করছি।

About the author

CrimeSearchBD

%d bloggers like this: