সারাদেশ

ফের জঙ্গিদের মাথাচাড়া

Written by CrimeSearchBD

ঝিমিয়ে থাকা উগ্রবাদী জঙ্গি গোষ্ঠী আবারও মাথাচাড়া দিয়ে উঠছে। শহর-নগর কিংবা গ্রামাঞ্চলে সুবিধাজনক স্থানে গাড়ছে আস্তানা। শুক্রবারও রাজধানী ঢাকা ও সিরাজগঞ্জে দুটি জঙ্গি আস্তানা ঘিরে পৃথক অভিযান পরিচালনা করেছে এলিটফোর্স র‌্যাব ও ঢাকা মহানগর পুলিশের গোয়েন্দা বিভাগ (ডিবি)। সংশ্লিষ্ট একাধিক সূত্র বলছে, জঙ্গি সংগঠনগুলো বর্তমানে ‘ইনডোর’ ও ‘আউটডোর’ ফর্মুলায় নানা কৌশল প্রয়োগ করে তৎপরতা চালাচ্ছে। ইনডোর অর্থাৎ ঘরে বা আস্তানায় বসেই অনলাইনভিত্তিক নানা অ্যাপসে অভ্যন্তরীণ যোগাযোগ ও কর্মকৌশল ঠিক করা হচ্ছে। অপরদিকে আউটডোরে বা বাইরের তৎপরতার ক্ষেত্রে কখনও তাবলিগ জামাত আবার কখনও নানা পেশাজীবীর আড়ালে জঙ্গি তৎপরতা চালানো হচ্ছে।
শুক্রবার রাজধানীর উত্তরার কামারপাড়ায় গোপন তথ্যের ভিত্তিতে নির্মাণাধীন একটি ভবন ঘিরে রেখে অভিযান চালায় ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের উত্তর বিভাগ। বিকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত চলা ওই অভিযানে ৩১টি বোমা ও নানা সরঞ্জাম উদ্ধার করা হয়। অপরদিকে শুক্রবার ভোরে সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর পৌর এলাকার উকিলপাড়ার একটি বাড়ি ঘেরাও করে ছয় ঘণ্টার রুদ্ধশ^াস অভিযান পরিচালনা করেছে র‌্যাব। একপর্যায়ে আস্তানা থেকে বেরিয়ে র‌্যাবের কাছে আত্মসমর্পণ করেছে নিষিদ্ধ জঙ্গি সংগঠন জেএমবির ৪ জঙ্গি। এর আগে বুধবার রাজধানীর দক্ষিণখানের কাওলা এলাকায় অভিযান চালিয়ে নিষিদ্ধ জঙ্গি সংগঠন হিযবুত তাহরীরের ৪ সক্রিয় সদস্যকে গ্রেফতার করে পুলিশের অ্যান্টি টেরোরিজম ইউনিট। গত ৩ নভেম্বর কুমিল্লা থেকে ওমর ফায়সাল নামে এক হিযবুত কর্মীকে গ্রেফতার করে অ্যান্টি টেরোরিজম ইউনিট। তারও আগে গত ১০ সেপ্টেম্বর মিরপুর-১ থেকে জঙ্গি সংগঠন আনসার আল ইসলামের ৪ জঙ্গিকে গ্রেফতার
করে র‌্যাব। এরকম প্রায় বিভিন্ন এলাকায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর অভিযানে বিভিন্ন জঙ্গি সংগঠনের নেতাকর্মীরা গ্রেফতার হচ্ছে। করোনাকালে সবখানে যখন মানুষের জীবন ও অর্থনীতি ভয়ঙ্কর এক পরিস্থিতি পার করছে তখন জঙ্গিরা নানা সুযোগ কাজে লাগিয়ে মাথাচাড়া দিয়ে উঠছে বলেও মনে করছেন গোয়েন্দারা।
এ প্রসঙ্গে নিরাপত্তা বিশ্লেষক মেজর জেনারেল (অব.) আবদুর রশিদ সময়ের আলোকে গতকাল বলেন, বাংলাদেশে যে জঙ্গিবাদ আমরা দেখতে পাচ্ছি তার নেপথ্যে অধিকাংশ ক্ষেত্রেই প্রত্যক্ষ-পরোক্ষভাবে রয়েছে অভ্যন্তরীণ রাজনৈতিক ইন্ধন। রাজনৈতিক সুবিধা হাসিলের উদ্দেশ্যেই জঙ্গিদের উসকে দেওয়া হচ্ছে। অধিকাংশই নির্দিষ্ট কোনো আদর্শ বা ইস্যুতে পরিচালিত হয় না। তবে আশার কথা হচ্ছেÑ আমাদের নিরাপত্তা বাহিনী সক্ষমতা বহুগুণে বেড়েছে। জঙ্গিরা যখনই নড়াচড়া দিয়ে ওঠে তখনই তারা ধরা পড়ছে। সম্প্রতি জঙ্গিদের প্রায় সব নাশকতার পরিকল্পনা নস্যাৎ করতে সক্ষম হয়েছেন আমাদের গোয়েন্দারা। আবদুর রশিদ আরও বলেন, জঙ্গিবাদ রোধে আমারা ‘মোটিভেশন’ কার্যক্রমে অনেক দুর্বলতার পরিচয় দিচ্ছি। বিপথগামীদের সঠিক পথ দেখাতে হবে। সবসময় সেটি কঠোরতা বা শক্তি প্রয়োগের মাধ্যমে হবে না। ‘সফটলি অ্যাপ্রচ’-এর মাধ্যমে সমাজ ও জনগণকে নিয়ে জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে কাজ করতে হবে।
উত্তরায় ভবন ঘিরে রেখে ৩১ বোমা উদ্ধার : শুক্রবার বিকাল সাড়ে ৪টার দিকে রাজধানীর উত্তরা ১০ নম্বর সেক্টরের ১৩ নম্বর রোডে কামারপাড়ার একটি নির্মাণাধীন বাড়ি ঘিরে রেখে অভিযান চালায় ডিবি পুলিশ। পরে ঘটনাস্থলে অবিস্ফোরিত প্রায় ৩১টি বোমা উদ্ধার করা হয়। পরে বোমাগুলো নিষ্ক্রিয় করেছে ডিএমপির বোম্ব ডিসপোজাল ইউনিট। অভিযানকালে অংশ নিয়েছিল উত্তরা পশ্চিম থানা পুলিশও।
ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের উপকমিশনার (উত্তরা বিভাগ) কাজী শফিকুল আলম জানান, নির্মাণাধীন এই ভবনে কারা, কী উদ্দেশ্যে বোমা মজুদ করেছে তা তদন্ত করা হচ্ছে। তবে ধারণা করা হচ্ছে ঢাকা-১৮ আসনে উপনির্বাচনে ভোটগ্রহণের দিন ব্যবহারের পরিকল্পনা ছিল। কারণ নির্বাচনের দিন ওই এলাকায় চারটি বোমা বিস্ফোরিত হয়েছিল। সেই ঘটনায় বেশ কয়েকজনকে গ্রেফতার করা হয়। তাদের দেওয়া তথ্যমতে কামারপাড়া থেকে কিছু অবিস্ফোরিত বোমা উদ্ধার করা হয়।
শাহজাদপুরে সশস্ত্র ৪ জঙ্গির আত্মসমর্পণ : সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি মো. রেজাউল করিম ও শাহজাদপুর (সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধি মো. নয়ন আলী জানান, সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর পৌর এলাকায় নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গি সংগঠন জেএমবির আস্তানায় অভিযান চালিয়ে সংগঠনের পাবনা-সিরাজগঞ্জের আঞ্চলিক আমির কিরণসহ ৪ জঙ্গিকে আটক করেছে র‌্যাব। এ ছাড়াও ঘটনাস্থল থেকে দুটি পিস্তল, বোমা তৈরির বিভিন্ন সরঞ্জাম, জঙ্গিবাদে উসকানিমূলক বইসহ প্রশিক্ষণের বিভিন্ন সামগ্রী উদ্ধার করা হয়। শুক্রবার ভোর ৫টা থেকে বেলা ১১টা পর্যন্ত পৌর সদরের শেরখালীর উকিলপাড়ার একটি বাড়িতে ওই অভিযান পরিচালনা করে র‌্যাব। অভিযানে আটক অন্যরা হলোÑ পাবনার সাঁথিয়ার নাঈমুল ইসলাম, দিনাজপুরের আতিউর রহমান ওরফে কলম সৈনিক ও সাতক্ষীরার আমিনুল ইসলাম ওরফে শান্ত।
র‌্যাব জানায়, শাহজাদপুরে জঙ্গিদের অবস্থান জানতে পেরে র‌্যাবের গোয়েন্দা বিভাগ বৃহস্পতিবার ভোরে অভিযান শুরু করলে র‌্যাবের অবস্থান টের পেয়ে জঙ্গিরা র‌্যাবকে উদ্দেশ্য করে গুলিবর্ষণ করে। পরে কৌশল পরিবর্তন করে র‌্যাবের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (অপারেশন) কর্নেল তোফায়েল মোস্তফা সারোয়ারের নেতৃত্বে পূর্ণ প্রস্তুতি নিয়ে নতুনভাবে অভিযান পরিচালনা করা হয়। এ সময় জঙ্গিদের আত্মসমর্পণের আহŸান জানানো হয়। প্রায় ছয় ঘণ্টা অভিযানে টিকতে না পেরে জঙ্গিরা আত্মসমর্পণ করে। আস্তানা থেকে তারা বেরিয়ে এলে বেলা সাড়ে ১১টার দিকে র‌্যাব তাদের আটক করে ঢাকায় পাঠানো হয়।
অভিযান শেষে কর্নেল তোফায়েল মোস্তফা সারোয়ার বলেন, বৃহস্পতিবার রাতে রাজশাহীর শাহ মখদুম থানায় অভিযান চালিয়ে জেএমবির রাজশহী বিভাগীয় আমির জুয়েল আলী ওরফে মাহমুদসহ ৪ জনকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারের পরে তাদের জিজ্ঞাসাবাদে শাহজাদপুরে আরও জঙ্গি অবস্থানের তথ্য পাওয়া যায়। সেই সূত্র ধরেই শাহজাদপুরে ভোর ৫টায় অভিযান শুরু করা হয়। প্রথমে জঙ্গিরা র‌্যাবকে উদ্দেশ্য করে গুলিবর্ষণ শুরু করে। হতাহত আটকাতে কৌশল পরিবর্তন করে বাড়িটি ঘিরে রেখে মাইকে তাদের আত্মসমর্পণের আহŸান জানানো হয়। দীর্ঘ চেষ্টার পরে তারা আত্মসমর্পণ করে। এ সময় ওই বাড়ি থেকে তাদের সাংগঠনিক বই, দুইটি বিদেশি পিস্তল, গান পাউডার, বোমা তৈরির সরঞ্জাম ও পতাকা উদ্ধার করা হয়। পঁচিশ দিন আগে শাহজাদপুরের শেরখালির ওই বাড়িটি ভাড়া নিয়ে বসবাস শুরু করে। তাবলিগ জামাতের সঙ্গে মিশে তারা নিজেরা সংগঠিত হওয়ার চেষ্টা করছিল। গতকাল তাদের সাংগঠনিক মিটিং ছিল। সেই খবর জানতে পেরেই অভিযান পরিচালনা করা হয়।

About the author

CrimeSearchBD

%d bloggers like this: