সারাদেশ

গাজীপুরে পুলিশ কনস্টেবলের আত্মহত্যা

Written by CrimeSearchBD

গাজীপুর মহানগরের পশ্চিম বিলাশপুর এলাকায় গলা কেটে আত্মহত্যা করেছেন পুলিশের এক কনস্টেবল। নিহত ওই পুলিশ কনস্টেবলের নাম রবিউল আওয়াল (২২)।

তিনি গাজীপুর মহানগরের পশ্চিম বিলাশপুর এলাকার মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল জলিল খন্দকারের ছেলে। গত বুধবার দিবাগত রাতে গাজীপুরে ওই কনস্টেবলের নিজ বাসা থেকে তার লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। তিনি কিশোরগঞ্জ পুলিশ লাইনের কন্সটেবল (নং-১৪৭৭) হিসেবে কর্মরত ছিলেন।

গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের (জিএমপি) সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মুহাম্মদ আলমগীর ভূঞা জানান, প্রায় ৭/৮ মাস আগে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে আউয়ালের বড় ভাই মারা যান। এর কয়েকদিন পর পুত্রশোকে আউয়ালের মাও হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা যান।

মা ও ভাইয়ের মৃত্যুতে মানসিক ভারসাম্য হারিয়ে ফেলেন পুলিশ কনস্টেবেল আউয়াল। গত জানুয়ারিতে চিকিৎসার জন্য ছুটি নিয়ে গাজীপুরের বাড়িতে আসেন তিনি। কয়েকদিন চিকিৎসা শেষে কর্মস্থলে যোগ দেন আউয়াল। কিন্তু আবারো অসুস্থ হয়ে পড়লে মার্চ মাসে পুনরায় ছুটি নিয়ে বাড়ি আসেন তিনি।

তাকে ঢাকার একটি হাসপাতালে রেখে চিকিৎসা দেওয়া হয়। তার মানসিক অবস্থার তেমন উন্নতি না হলে সম্প্রতি স্বজনরা সেখান থেকে তাকে বাড়িতে নিয়ে আসেন।

ছুটিতে এসে তিনি দীর্ঘদিন কর্মস্থলে অনুপস্থিত ছিলেন। এদিকে কর্মস্থলে যোগদানের চিঠি পেয়ে বুধবার সকালে আউয়ালকে নিয়ে তার বাবা ও ভাই কিশোরগঞ্জে যান। কিন্তু সম্পূর্ণ সুস্থ না হওয়ায় তার পক্ষে কর্মস্থলে যোগ দেওয়া সম্ভব হয়নি।

বুধবার সন্ধ্যায় বাড়ি ফিরে আসেন আউয়াল এবং তার বাবা ও ভাই। বাড়ি ফিরে আসার পর রাত ৮টার দিকে বাড়ির লোকজনের অগোচরে আউয়াল রান্নাঘরে ঢুকে ভেতর থেকে দরজার ছিটকিনি আটকে দেন।

সদর থানার উপ-পরিদর্শক মো. জহিরুল ইসলাম জানান, দীর্ঘ সময়েও তার সাড়া শব্দ না পেয়ে বাড়ির লোকজন পুলিশে সংবাদ দেয়।

খবর পেয়ে সদর থানার পুলিশ ওই ঘর থেকে আউয়ালের গলা কাটা রক্তাক্ত মরদেহ উদ্ধার করে। এ সময় ঘটনাস্থল থেকে রক্তমাখা একটি বটি উদ্ধার করা হয়।

বৃহস্পতিবার গাজীপুরের শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে তার মরদেহের ময়না তদন্ত সম্পন্ন হয়েছে। এ ব্যাপারে নিহতের বাবা বাদী হয়ে সদর থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা করেছেন।

About the author

CrimeSearchBD

%d bloggers like this: