সারাদেশ

কালিয়াকৈরে বন্দুক যুদ্ধে যুবকের মৃত্যু

Written by CrimeSearchBD

গাজীপুরের কালিয়াকৈর উপজেলার হাবিবপুর এলাকায় গত বুধবার দিবাগত মধ্যরাতে পুলিশের সঙ্গে বন্দুক যুদ্ধে সন্ত্রাসী এক যুবকের মৃত্যু হয়। এ সময় তার হেফাজত থেকে দেশীয় অস্ত্র ও গুলি পাওয়া গেছে। বন্দুক যুদ্ধের সময় থানা পুলিশের চার সদস্য আহত হয়েছে।

নিহত হলেন, মাদারীপুরের কালকিনি থানার সাহেব রামপুর এলাকার কাঞ্চন সিকদারের ছেলে মো. হানিফ (৩০)।

আহতরা হলেন, কালিয়াকৈর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মাহবুর রহমান, সহকারী উপপরিদর্শক (এএসআই) সুলতান মিয়া, কনস্টেবল আ. মালেক ও সুমন মিয়া।

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, গাজীপুরের কালিয়াকৈর উপজেলার হাবিবুর এলাকায় ঘেঘা মজিবর রহমানের মেয়েকে বিয়ে করে হানিফ। বিয়ের পর থেকে সে তার শশুর বাড়িতেই বসবাস করতো। সেখানে থেকে সে মাদক ব্যবসা, চুরি, ডাকাতিসহ নানা অপকর্ম করে বেড়াতো। তার বিরুদ্ধে কালিয়াকৈর থানায় বিভিন্ন অভিযোগে ১০টি মামলা রয়েছে। সে পুলিশের কাছ থেকে পালিয়ে পালিয়ে বেড়াতো।

গত বুধবার রাতে পুলিশ গোপন সংবাদে জানতে পারে সন্ত্রাসী হানিফসহ বেশ কয়েকজন হাবিবপুর এলাকায় ঝিকঝাক মাঠের পাশে অবস্থান করছে। রাত ৩টার দিকে কালিয়াকৈর থানা পুলিশ ওই এলাকায় অভিযান চালায়।

এ সময়ে সন্ত্রাসীরা পুলিশকে লক্ষ করে গুলি ছুড়ে এতে পুলিশও পাল্টা গুলি করে। এতে সন্ত্রাসী হানিফ গুলিবিদ্ধ হয়। অন্যরা দৌড়ে পালিয়ে যায়। পরে তাকে উদ্ধার করে কালিয়াকৈর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করে।

ঘটনার সময় পুলিশের চার সদস্য এসআই মাহবুর রহমান, এএসআই সুলতান মিয়া, কনষ্টেবল আ. মালেক ও সুমন মিয়া আহত হয়। তাদের উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে ওয়ান শুট্যার দেশীয় তৈরি এলজি বন্দুক ও তিন রাউন্ড কার্তুজ উদ্ধার করেছে।

কালিয়াকৈর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মুফতি মাহমুদ জানান, হানিফ এলাকার চিহ্নিত সন্ত্রাসী। তার বিরুদ্ধে কালিয়াকৈর থানায়, মাদক, অস্ত্র, ডাকাতিসহ বিভিন্ন অভিযোগে ১০টি মামলা রয়েছে।

About the author

CrimeSearchBD

%d bloggers like this: