খেলাধুলা

ইউনিসেফের তহবিল সংগ্রহে প্যাট ফার্মার আসছেন বাংলাদেশে

সুস্থ দেহ আর সুন্দর মনই দিতে পারে একটি আত্মনির্ভরশীল জাতি এবং একটি সুন্দর সমাজ। সুস্থ থাকার জন্য সবচেয়ে উপযুক্ত ব্যায়াম হচ্ছে নিয়মিত দৌঁড়ানো। এ লক্ষ্যকে সামনে রেখে গতকাল বুধবার জাতীয় সংসদ ভবনের সামনে অস্ট্রেলিয় প্রতিষ্ঠান এআইএস মেরিন এন্ড অফসোর এবং বাংলাদেশী প্রতিষ্ঠান গ্রীন বাংলাদেশ গ্রীন মোভমেন্ট এর যৌথ উদ্যোগে পালিত হল বিশ্ব দৌঁড় দিবস।

দিবসটি উপলক্ষে একাধিক বিশ্বরেকর্ডের অধিকারী অস্ট্রোলিয়ার ম্যারাথন এ্যাথলেট প্যাট ফার্মার বাংলাদেশের মানুষের জন্য একটি ভিডিও বার্তা পাঠিয়েছেন। এ বার্তায় তিনি বাংলাদেশের মানুষকে তার মহৎ উদ্যোগে অংশগ্রহণ করার আহবান জানিয়েছেন।

১৯৬২ সালে জন্ম নেয়া ফার্মার উত্তর মেরু থেকে দক্ষিণ মেরু দৌঁড়ানো মানব ইতিহাসের অন্যতম গৌরবময় বিশ্বরেকর্ডধারী। ২০১২ সালে অস্ট্রোলিয়ান রেড ক্রস এর পক্ষ থেকে ফান্ড তোলার জন্য তিনি এই বিশ্বরেকর্ড গড়েন। এছাড়া তিনি বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন দাতব্য সংস্থার পক্ষে তহবিল সংগ্রহ করেছেন।

বিশ্ববিখ্যাত মানবতার ফেরিওয়ালা এই দৌঁড়বিদের পরবর্তী মিশন হচ্ছে বাংলাদেশ। তিনি টেকনাফ থেকে দৌড় শুরু করে প্রতিদিন গড়ে ৮০ কিলোমিটার এবং ৩০ দিনে বাংলাদেশের অন্তত ২০০০ কিলোমিটারের পথ পাড়ি দিবেন। এই দৌঁড়ের মাধ্যমে ইউনিসেফ বাংলাদেশের জন্য ফান্ড তোলাসহ সমাজের বিভিন্ন স্তরের মানুষের মধ্যে সুস্বাস্থ্য সুন্দর পরিবেশে শিশু ও নারীর অধিকার এবং সামাজিক মূল্যবোধের জন্য প্রচারণা চালাবেন তিনি। যা অতীতের মতো অস্ট্রোলিয়ার বিভিন্ন গণমাধ্যমে গুরুত্বের সঙ্গে প্রচার করা হবে।

কক্সবাজারে মানবিক প্রতিক্রিয়ার নেতৃত্ব দিতে ২০১৭ সাল থেকে অস্ট্রেলিয়া বাংলাদেশ সরকারকে সহায়তা করছে। অস্ট্রেলিয়ার অর্থায়নে ৪ লাখেরও বেশি বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গাদের খাবার বিতরণে (চাল এবং ডাল) অবদান রাখছে। এছাড়া অপুষ্টিজনিত সমস্যায় ভুগতে থাকা দেশের ৩৯,২৫৪ শিশু এবং ২১৫ শিশু ও মেয়েদের জন্য উপযুক্ত বাসস্থান নির্মাণসহ ৫৪,৭৮২ জন মহিলা ও শিশুর পুষ্টিকর পরিপূরক সরবরাহকে সমর্থন করেছে। এর ফলে ৪৮,০০০ জনেরও বেশি শিশু উপকৃত হয়েছে। এছাড়া সংকটাপন্ন ব্যক্তিদের জন্য পরিষ্কার পানীয় জল, বাসস্থান ও স্বাস্থ্যসেবা সুবিধার উন্নতি করছে।

প্যাট ফার্মার অষ্ট্রেলিয়ার বর্তমান প্রধানমন্ত্রী স্কট মরিসন সহ প্রাক্তন বিদেশ বিষয়ক মন্ত্রী জুলি বিশপ এবং বর্তমান বিদেশ বিষয়ক মন্ত্রী মারিস প্যায়নি এর খুব ঘনিষ্ঠ বন্ধু হিসাবে পরিচিত। তাই তার এই সফর অস্ট্রেলিয়া এবং বাংলাদেশের দি¦পাক্ষিক সম্পর্ককে উচ্চ মাত্রায় নিয়ে যাবে বলে বিশেষজ্ঞদের অভিমত।বাসস

About the author

CrimeSearchBD

%d bloggers like this: